বিক্ষিপ্ত অশান্তির মধ্যেই উৎসবের আমেজে ভোট হল পশ্চিম মেদিনীপুরে! ৮৪ শতাংশ ভোট পড়ল, সবার উপরে পিংলা আর নারায়ণগড়, সবং-চন্দ্রকোনা-কেশপুরেও বিপুল ভোট

মণিরাজ ঘোষ, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২ এপ্রিল: বিক্ষিপ্ত রাজনৈতিক অশান্তি-সংঘর্ষের মধ্যেই পশ্চিম মেদিনীপুরে ভোট হল উৎসবের মেজাজে। মোট ৯ টি বিধানসভায় গতকাল (১ এপ্রিল) ভোট হয়েছে এই জেলায়। বরাবরের মতোই অশান্তি, সংঘর্ষ আর রক্তপাতের ‘এপিসেন্টার’ বা কেন্দ্রস্থল হয়ে থাকল পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশপুর। রক্তপাত-মৃত্যু দিয়ে সেখানে ভোট শুরু হয়েছে, শেষও হল রক্তপাত দিয়েই! তৃণমূল কর্মী উত্তম দলুইয়ের মৃত্যুর পর, একেবারে শেষ লগ্নে তৃণমূল প্রার্থী শিউলি সাহা’র নির্বাচনী এজেন্ট হাবিবুর রহমান’কে নৃশংস আক্রমণ! চোখের কাছে মারাত্মক আঘাত পেয়ে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন তিনি। মাঝখানে, বিজেপি প্রার্থী প্রীতিশ রঞ্জন কোনার সহ তাঁর নির্বাচনী এজেন্ট তন্ময় ঘোষের উপর হামলা। না, এখনও থেমে নেই কেশপুর! ভোট পরবর্তী হিংসা অব্যাহত আছে। ভোট শেষ হতেই মাকুলচকে এক বিজেপি কর্মীর মাথায় টাঙি দিয়ে আঘাত করা হয়। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে কেশপুর গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে, নেড়াদেউলে আজ (২ এপ্রিল) তৃণমূল কর্মী-সমর্থকরা পথ অবরোধ করেছেন। তাদের সক্রিয় কর্মী উত্তম দলুইয়ের খুনের প্রতিবাদে! ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে কেশপুর থানার পুলিশ। তবে, কেশপুর বাদ দিলে জেলার বাকি ৮ টি বিধানসভায় মোটের উপর নির্বিঘ্নেই নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। শুধু নির্বিঘ্নে নয়, রীতিমতো উৎসবের মেজাজেই ভোট দিলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের ১৮ থেকে ৮০’র ভোটাররা! আজ জেলা প্রশাসন সূত্রে পাওয়া তথ্যও গতকালের ‘উৎসবের আমেজ’ কেই স্বীকৃতি দিচ্ছে।

thebengalpost.in
ডেবরার হরিমতী সারস্বত বিদ্যামন্দির (মডেল বুথ) :

জেলা প্রশাসন সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, পশ্চিম মেদিনীপুরের ৯ টি বিধানসভায় গড়ে ভোট পড়েছে ৮৩.৮৪ শতাংশ। তথ-পরিসংখ্যান বলছে, অশান্তির কেন্দ্রবিন্দু কেশপুরেও ভোট হয়েছে গণ-উচ্ছ্বাসের আবহে! ভোট পড়েছে ৮৭.৭১ শতাংশ। সবার উপরে আছে পিংলা। ৮৯.০২ শতাংশ ভোট পড়েছে। বড় কোনও অশান্তির খবরও নেই। এরপরই আছে নারায়ণগড়। ৮৮.৮৭ শতাংশ ভোট পড়েছে। বিজেপির প্রতীক আঁকা টুপি পরে বুথের ১০০ মিটারের মধ্যে টোটো চালকের ঢুকে পড়া বাদ দিলে, নির্বিঘ্নেই ভোট হয়েছে এখানে। দুপুরের পর দলবেঁধে বাড়ির মহিলাদের ভোট দিতে যাওয়ার চিত্র এখানে ধরা পড়েছে গতকাল। শতাংশের বিচারে এর পর পরই আছে- চন্দ্রকোনা (৮৮.৬৮) সবং (৮৮.০৩), কেশপুর (৮৭.৭১), ডেবরা (৮৬.৫৭)। ডেবরা’তে বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে দু’এক জায়গায় বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তৃণমূল কর্মী-সমর্থকরা। তৃণমূল প্রার্থী হুমায়ূন কবীর দু’একটি ক্ষেত্রে, কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ এনেছেন। এছাড়া, বাদবাকি সবকিছুই হয়েছে এখানে নিয়ম মেনে। ডেবরার হরিমতী সারস্বত বিদ্যামন্দিরের মডেল বুথে ভোট হল উৎসবের আমেজে। ৮১, ৮১ এ, ৮২, ১০২, ১০২ এ ‘র ভোটাররা ভোট দিলেন মহানন্দে এবং সমস্ত ধরনের নিয়ম মেনে। তুলনামূলক ভোট কম পড়েছে খড়্গপুর সদর (৭২.৬৮), দাসপুর (৭৪.০৩) এবং ঘাটালে (৭৯.৮৩)। তবে, বরাবরই এই ৩ টি বিধানসভায় ভোট কম পড়ে। কারণ, ঘাটাল মহকুমার ঘাটাল ও দাসপুর থানার অনেক মানুষ ভিন রাজ্যে সোনা, জরি ও রাজমিস্ত্রির কাজ করতে চলে যান। অপরদিকে, খড়্গপুরের অনেক বাসান্দাই এখানে থাকেন অনিয়মিতভাবে। তা সত্ত্বেও, এই তিন বিধানসভায় এবার তুলনামূলক ভাবে বেশি ভোট পড়েছে। সবমিলিয়ে, ভোটদানের এই বিপুল উচ্ছ্বাস থেকে এটুকু খুব সহজেই অনুমেয় যে, এবারের ভোট সকলের কাছেই ‘অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’। হয় তা পরিবর্তনের পক্ষে আর নাহয় তা প্রত্যাবর্তনের পক্ষেই! আপাতত অপেক্ষা এক মাসের।

thebengalpost.in
স্বাস্থ্য বিধি মেনে ভোটদান প্রক্রিয়া :

thebengalpost.in
নারায়ণগড়ে দলবেঁধে ভোট :

আরও পড়ুন -   করোনা আক্রান্ত 'ব্যোমকেশ বক্সী'! আছেন গৃহ নিভৃতবাসে