বহিষ্কার করা হল বৈশালীকে! অমিত শাহের সভায় প্রায় ১৭ হেভিওয়েট গেরুয়া পতাকা ধরতে চলেছেন

thebengalpost.in
মমতার সঙ্গে বৈশালী (ফাইল ছবি) :
বিজ্ঞাপন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, কলকাতা, ২২ জানুয়ারি: দলবিরোধী মন্তব্যের কারণে বহিষ্কার করা হল বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়ার। লক্ষ্মীরতন শুক্লা’র মন্ত্রিত্ব ত্যাগের সময়ও তিনি দলের জেলা নেতৃত্বের প্রতি ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন। আজ ফের রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিত্ব ত্যাগের পরও গর্জে ওঠেন বৈশালী! তিনি বলেন, “দলটা উইপোকায় ভরে গেছে। ওদের জন্যই লক্ষ্মীরতন শুক্লা, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো দক্ষ প্রশাসকদের দল ছাড়তে হচ্ছে।” তিনি এও বলেন, “আমিও ধৈর্য্য ধরে দলে আছি। কতদিন ধৈর্য্য ধরবে আমি জানি না।” এরপরই দলের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি সিদ্ধান্ত নেয় বৈশালীকে দল থেকে বহিষ্কার করার বিষয়ে। যদিও, এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে তাঁর কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি, তবে বৈশালীর বিজেপি-যাত্রার বিষয়ে রাজনৈতিক মহল একপ্রকার নিশ্চিত! অমিত শাহের জানুয়ারি মাসের ৩০-৩১ এর সভাতেই হয়তো ‘শুভ কাজ’ সারতে পারেন বৈশালী।

thebengalpost.in
বৈশালী ডালমিয়া :

বিজ্ঞাপন
[ আরও পড়ুন -   "ইডির নোটিশ পাঠানোর খবর সম্পূর্ণ মিথ্যে ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত", ফেসবুকে পোস্ট করে জানালেন ফিরহাদ কন্যা প্রিয়দর্শিনী ]

এদিকে, দুই ক্যাবিনেট মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্লা’র পর আরও বেশ কয়েকজন মন্ত্রী, বিধায়ক ও সাংসদ তৃণমূল ছাড়তে চলেছেন। তাঁরাও হয়তো অমিত শাহের হাত ধরে ৩০ জানুয়ারি বা ৩১ জানুয়ারি পদ্ম-পতাকা হাতে তুলে নেবেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, বৈশালী ডালমিয়া এবং লক্ষ্মীরতন শুক্লা ছাড়াও যে নামগুলি নিয়ে আলোচনা করছেন, সেগুলি হল- সাধন পাণ্ডে, জিতেন্দ্র তিওয়ারি, আবির বিশ্বাস, বিশ্বনাথ পাড়িয়াল, সিএস জাটুয়া, দিলীপ জাটুয়া, দীপক অধিকারী, প্রতিমা মণ্ডল, আফরিন আলি, শঙ্কর সিং। এমনকী বিধায়ক উদয়ন গুহ, প্রবীর ঘোষাল, মমতাবালা ঠাকুর, সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী ও শিশির অধিকারী’র নামও শোনা যাচ্ছে বিভিন্ন মহলে! সবমিলিয়ে প্রায় ১৭ জন হেভিওয়েট মন্ত্রী-বিধায়ক ও সাংসদ গেরুয়া বাহিনীতে যোগদান করতে চলেছেন বলে রাজনৈতিক মহলের একাংশ আজ দাবি করেছেন।

thebengalpost.in
মমতার সঙ্গে বৈশালী (ফাইল ছবি) :

Advertisements
[ আরও পড়ুন -   ছেলের 'জেদ' পূরণ করতে যাওয়াই কাল হল! লক্ষ্মীর 'প্রদীপ' সত্যিই নিভে গেল ]

Advertisements