পালিয়ে যাওয়া চার কিশোরী হোমে ফিরলেও কর্তৃপক্ষকে কড়া হুঁশিয়ারি দিলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলাশাসক

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ৭ এপ্রিল: সরকারি নিরাপত্তার ঘেরাটোপকে কার্যত বুড়ো আঙুল দেখিয়ে, গত শনিবার (৩ এপ্রিল) রাতে, মেদিনীপুর শহরের উপকণ্ঠে রাঙামাটিতে অবস্থিত বিদ্যাসাগর বালিকা ভবন (সরকারি হোম) থেকে পালিয়ে গিয়েছিল চার কিশোরী। রীতিমতো হুলুস্থুল পড়ে যায় জেলা শহরের এই ঘটনায়। হোম কর্তৃপক্ষ থেকে শুরু করে পুলিশ-প্রশাসন ভয়ঙ্কর চাপে পড়ে যায়। জেলা পুলিশের নেতৃত্বে কোতোয়ালি থানা তৎপর হয়ে ওঠে চার কিশোরী’কে খুঁজে পেতে। পুলিশ-প্রশাসনকে অবশ্য খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি! রবিবার সন্ধ্যার মধ্যেই দুই কিশোরী তাদের পরিবার-পরিজনদের মধ্যস্থতায় হোমে ফিরে আসে। সোমবার আরও ২ জনকে ফেরানো হয়! প্রসঙ্গত, চার কিশোরীর মধ্যে দু’জনের বাড়ি নারায়ণগড় ব্লক এলাকায়। একজনের বাড়ি ডেবরা এলাকায় এবং অপর একজনের বাড়ি খড়্গপুর-২ ব্লকের মাদপুর এলাকায়।

thebengalpost.in
বিদ্যাসাগর বালিকা ভবন :

উল্লেখ্য যে, শনিবার (৩ এপ্রিল) রাতে খাওয়া-দাওয়ার পর জানালার রড খুলে, CCTV ক্যামেরার মুখ ঘুরিয়ে হোমের ভেতর থেকে চার কিশোরী পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় হোমের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে বিভিন্ন মহলে! কিভাবে নিরাপত্তার বেড়াজাল ছিন্ন করে, একসাথে চার কিশোরী পালিয়ে গেল, তা নিয়ে সারা জেলা জুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছিল। হয়তো ২৪ ঘন্টার মধ্যেই তাদের ফেরানো গেছে, কিন্তু, কিভাবে তারা নিরাপত্তার ঘেরাটোপকে উপেক্ষা করে অনায়াসে প্রাচীর টপকে পালিয়ে গেল, তা নিয়ে উপযুক্ত তদন্তের দাবি উঠছিল সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মহল থেকে। এবার পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলাশাসক ডঃ রশ্মি কমল স্বয়ং কর্তৃপক্ষকে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন, CCTV ফুটেজ খতিয়ে দেখে এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করতে। একইসঙ্গে তিনি এই হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন, ভবিষ্যতে যাতে এই ধরনের ঘটনা না ঘটে, সে জন্য উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করার বিষয়ে। কারণ, এর আগেও ওই হোম থেকে আবাসিক পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছিল! প্রসঙ্গত, পালিয়ে যাওয়া এবং ফিরে আসা এই চার কিশোরী সম্পর্কে প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, এদের মধ্যে দু’জন নাবালিকার বিয়ে আটকে হোমে পাঠানো হয়েছিল। অন্য দু’জন বাড়িতে গোলমাল করে পালিয়ে গিয়েছিল! তাদের উদ্ধার করে আদালতের নির্দেশে হোমে রাখা হয়েছিল। চার জনের মধ্যে একজনকে হোমে আনা হয়েছে গত ২৬ মার্চ (২০২১)। সূত্রের খবর, এই কিশোরী এর আগেও একবার হোমে এসেছিল, বাড়ি থেকে পালিয়ে বিয়ে করতে যাওয়ার অপরাধে! সেবার বুঝিয়ে-সুঝিয়ে তাঁর বাবা-মা’র হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। ১৮ বছর বয়স না হওয়া সত্ত্বেও, ফের বাড়ি থেকে পালিয়ে বিয়ে করতে যাওয়ায় তাঁকে উদ্ধার করে এবারও পাঠানো হয় (২৬ মার্চ) বিদ্যাসাগর বালিকা ভবন হোমে। কাজেই, হোমের এই চার কিশোরী যে রীতিমতো পরিকল্পনা করে শনিবার রাতে সবার নজর এড়িয়ে হোম থেকে পালিয়ে গিয়েছিল তা বলাই বাহুল্য!

thebengalpost.in
বিদ্যাসাগর বালিকা ভবন:

আরও পড়ুন -   নবম-দ্বাদশের ক্লাস শুরু হতে পারে ১২ ই ফেব্রুয়ারি থেকে, দশম ও দ্বাদশের পরীক্ষা সূচি প্রকাশ করল CBSE