অগ্নিযুগের বীর বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্ত’কে প্রয়াণ দিবসে স্মরণ করল মেদিনীপুর

thebengalpost.in
মেদিনীপুর কলেজিয়েট স্কুলের বিপরীতে বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্তের মর্মর মূর্তি'র পদতলে স্মৃতিরক্ষা কমিটির শ্রদ্ধাঞ্জলি :

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, মেদিনীপুর, ৩ মার্চ: ব্রিটিশ জেলাশাসক পেডি ও ভিলিয়ার্স হত্যার নায়ক, অগ্নিযুগের বীর বিপ্লবী তথা মেদিনীপুরের মুক্তিযোদ্ধা বিমল দাশগুপ্তের আজ ২২ তম প্রয়াণ দিবস। ২০০০ সালের ৩ রা মার্চ, ৯০ বছর বয়সে মেদিনীপুর শহরেই তিনি অমরত্ব লাভ করেছিলেন। ২২ তম প্রয়াণ দিবসে এই বীর বিপ্লবী’কে যথাযথ শ্রদ্ধা ও মর্যাদার সাথে স্মরণ করল মিডনাপুর ডট ইন (midnapore.in) নামক ঐতিহ্যমণ্ডিত সংস্থা এবং বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্ত স্মৃতিরক্ষা কমিটি।

thebengalpost.in
মেদিনীপুর কলেজিয়েট স্কুলের বিপরীতে বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্তের মর্মর মূর্তি’র পদতলে স্মৃতিরক্ষা কমিটির শ্রদ্ধাঞ্জলি :

স্বাধীনতার যু্দ্ধে বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্তের অবদান অবিস্মরণীয়। ১৯২৮ সালে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু বিপ্লবী দীনেশ গুপ্তকে বেঙ্গল ভলেন্টিয়ার্সের মেদিনীপুর শাখার দায়িত্ব দেন। দীনেশ গুপ্তের অক্লান্ত চেষ্টায় মেদিনীপুর জেলায় বিপ্লবী আন্দোলন অন্য মাত্রা পায়। বিমল দাশগুপ্ত হয়ে ওঠেন দীনেশ গুপ্তের মন্ত্রশিষ্য। লবন আইন অমান্যের সময় জেলাশাসক জেমস পেডি দীঘা সমুদ্রতীরে সত্যাগ্রহীদের ওপর পাশবিক অত্যাচার চালিয়েছিল। এর প্রতিশোধ নিতে বিপ্লবীরা সিদ্ধান্ত নেন পেডি হত্যার। জ্যোতিজীবন ঘোষের সাথে বিমল দাশগুপ্ত এই দায়িত্ব পান। ১৯৩১ খ্রিষ্টাব্দের ৭ এপ্রিল, ঐতিহাসিক মেদিনীপুর কলেজিয়েট স্কুলের একটি প্রদর্শনীতে উপস্থিত হলে, পেডি সাহেব এই দুই বিপ্লবীর গুলিতে নিহত হয়। দুজনেই পালাতে সক্ষম হন। বিমল দাশগুপ্ত আত্মগোপন করে ঝরিয়া অঞ্চলের কয়লাখনি তে চাকরি নেন ও পরে কলকাতার মেটিয়াবুরুজেও থাকতেন, পুলিশ সন্ধান পায়নি।

thebengalpost.in
বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্ত :

এরপর, ক্লাইভ স্ট্রীটে ভিলিয়ার্স সাহেবের হত্যার ভারও অর্পণ করা হয়, বিমল দাশগুপ্তের উপর। ২৯ জুলাই, ১৯৩১ সালে তিনি ভিলিয়ার্সকে গুলি করেন তার অফিসে ঢুকে। পকেট থেকে সায়ানাইড বের করার আগেই ধরা পড়ে যান। ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড হয় বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্তের। বাংলাদেশের বরিশালে জন্মগ্রহণ করলেও, এই বীর বঙ্গসন্তানের বেড়ে ওঠা, শিক্ষালাভ, স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়া প্রভৃতি সবকিছুই মেদিনীপুরে। মেদিনীপুর কলেজিয়েট স্কুলের বিপরীতে, কলেজ কলেজিয়েট ময়দানের সম্মুখে বীর বিপ্লবী বিমল দাশগুপ্তের দন্ডায়মান মর্মর মূর্তি আজও দেশবাসী, রাজ্যবাসী তথা মেদিনীপুর বাসী কে তাঁর বীরত্বের ইতিহাস স্মরণ করিয়ে দেয়। এই মর্মর মূর্তির পদতলেই মেদিনীপুরের দু’টি সংস্থা তাঁর প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করল।

আরও পড়ুন -   সদ্য প্রয়াত শিক্ষকের স্মৃতিতে বিনামূল্যে রোগ প্রতিরোধক ওষুধ বিতরণ