কৈলাস কীর্তিতে ‘জট মুক্ত’ জেলা বিজেপি! কেন্দ্রীয় আশ্বাসে মনোনয়ন প্রত্যাহার ‘বিক্ষুব্ধ’ প্রদীপ-ধীমান এর

thebengalpost.in
ধীমান কোলে ও প্রদীপ লোধা :

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ১২ মার্চ: বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দুই দফার প্রার্থীতালিকা ঘোষণা হওয়ার পরই, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা বিজেপি’র ঈশান কোণে যে আশঙ্কার কালো মেঘ ঘনিয়ে এসেছিল, ‘কৈলাস’ এর মহিমায় আপাতত সেই কালো মেঘ কেটে গেল! কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক তথা পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় আশ্বস্ত করলেন, দলের দুই বিক্ষুব্ধ নেতা তথা অভিজ্ঞ সেনাপতি ধীমান কোলে ও প্রদীপ লোধা’কে। তাই, দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রকাশ করে ‘নির্দল’ প্রার্থী হিসেবে জমা দেওয়া নিজেদের মনোনয়ন, তাঁরা আজ (১২ মার্চ) প্রত্যাহার করে নিলেন।

thebengalpost.in
ধীমান কোলে (বাম) ও প্রদীপ লোধা (ডান) :

প্রসঙ্গত, গত ৭ ই মার্চ প্রথম দুই দফার প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছিল বিজেপি’র কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। সেই তালিকা অনুযায়ী, গড়বেতা বিধানসভায় প্রার্থী করা হয়েছিল, মদন রুইদাস’কে এবং শালবনী বিধানসভায় প্রার্থী করা হয়েছিল রাজীব কুন্ডুকে। আর, এতেই চটেছিলেন এই এলাকার দুই অভিজ্ঞ ও প্রবীণ বিজেপি নেতা যথাক্রমে প্রদীপ লোধা ও ধীমান কোলে। তাঁদের বক্তব্য ছিল, “শুধু এই দুই কেন্দ্রেই নয়, আরো কয়েকটি কেন্দ্রে প্রার্থী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে, স্থানীয় নেতা-কর্মী-সমর্থকদের মতামতকে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। একটি বিশেষ গোষ্ঠীকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।” এরপরই, তাঁরা ৯ ই মার্চ নির্দল প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন, যথাক্রমে শালবনী (ধীমান কোলে) ও গড়বেতা (প্রদীপ লোধা) বিধানসভা আসনের জন্য। বেঙ্গল পোস্ট (thebengalpost.in) এ প্রকাশিত সেই খবর, সারা রাজ্য জুড়ে তোলপাড় ফেলে দেয়। নড়েচড়ে বসে বিজেপির রাজ্য ও কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় সরাসরি ফোন করেন দলের দুই অভিজ্ঞ নেতা কে। দলে তাঁদের গুরুত্ব সম্পর্কে বুঝিয়ে বলেন এবং এই চরম সময়ে দলকে ‘বিপদে না ফেলার জন্য’ আবেদন করেন। দলের প্রতি আবেগ ও ভালোবাসা থেকে ধীরে ধীরে তাঁদের মন গলতে শুরু করে। গতকাল ও আজ তাঁরা রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন নিজেদের মধ্যে। অবশেষে, আজ তাঁরা মনোনয়ন প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

thebengalpost.in
গড়বেতা বিধানসভার নির্দল (সমন্বয় মঞ্চ) প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা করার দিন (৯ মার্চ) প্রদীপ লোধা :

দলের কঠিনতম সময়ে, পশ্চিম মেদিনীপুর তথা জঙ্গলমহলে বিজেপি’কে যাঁরা নেতৃত্ব দিয়ে এসেছেন, তাঁদের মধ্যে অন্যতম হলেন, দলের প্রাক্তন জেলা সভাপতি ধীমান কোলে এবং প্রাক্তন সহ-সভাপতি প্রদীপ লোধা। কিন্তু, বর্তমান জেলা নেতৃত্বের প্রতি বিভিন্ন কারণে তাঁরা ক্ষোভ ও অভিমান প্রকাশ করছিলেন দীর্ঘদিন ধরেই। আর, এই ক্ষোভ ও অভিমানেরই চরম প্রকাশ হল, ‘নির্দল প্রার্থী’ হিসেবে তাঁদের মনোনয়নপত্র জমা করা। তবে, শেষ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সম্মানজনক আশ্বাসে তাঁরা এ যাত্রায় পিছু হটলেন এবং ঐক্যবদ্ধভাবে বিধানসভা নির্বাচনে লড়াই করার জন্য অঙ্গীকারবদ্ধ হলেন। দলীয় প্রার্থীদের হয়ে আজ থেকেই প্রচার করার প্রতিশ্রুতিও তাঁরা দিলেন। স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন, ওই দুই কেন্দ্রের প্রার্থী থেকে শুরু করে জেলা বিজেপি নেতৃত্ব। গতকাল রাতেও অবশ্য জেলা বিজেপি সভাপতি সোমেন তিওয়ারি, সহ সভাপতি অরূপ দাস, সাধারণ সম্পাদক শঙ্কর গুছাইত প্রমুখরা এই সমস্যার সমাধান হওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন! দুই প্রার্থী মদন রুইদাস ও রাজীব কুণ্ডুও নিশ্চিত ছিলেন, দলের এই দুই অভিজ্ঞ নেতা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করবেন! মনোনয়ন প্রত্যাহারের পর প্রদীপ বাবু জানালেন, “কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তরফে আমাদের বলা হয়, আপনাদের সমস্ত আবেদন ও পরামর্শ দল মেনে চলবে। কিন্তু, এবারের বিধানসভা নির্বাচনে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করতে হবে। পরবর্তী সময়ে আপনাদের সাথে আলোচনা করে দল সমস্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। তাই, আমরা, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে, ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করার সিদ্ধান্ত নিলাম।”

আরও পড়ুন -   উনিশে মেদিনীপুরে শাহ! হবিবপুরে ক্ষুদিরাম-পীঠস্থান, কর্ণগড়ের মন্দির দর্শন, স্পোর্টস কমপ্লেক্সে দলীয় বৈঠক