ফের রক্ত ঝরল কেশপুরে! পতাকা লাগানোকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে আহত বেশ কয়েকজন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২৩ মার্চ: ফের রক্ত ঝরল কেশপুরে! পতাকা লাগানোকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মধ্যে রাজনৈতিক সংঘর্ষে আহত হলেন বেশ কয়েকজন। শান্তনু ধল নামে গুরুতর আহত এক যুবককে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিরা কেশপুর গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি আছে বলে জানা যায়। প্রসঙ্গত, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার কেশপুর ব্লকের আনন্দপুরে আজকেই তৃণমূলের রাজ্য যুব সভাপতি অভিষেকর বন্দোপাধ্যায়ের সভা ছিল। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সেই সভা থেকে ফেরার সময়, সন্ধ্যা নাগাদ তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে পতাকা লাগানোকে কেন্দ্র করে বিরোধী দলের কর্মীদের সংঘর্ষ বাধে। ঘটনাটি ঘটেছে আনন্দপুর থানার হাজরা মোড় গ্রামে।

thebengalpost.in
আহত শান্তনু ধল :

আহত ব্যক্তিদের অভিযোগ যে, তারা রাস্তার ধারে বজরং মন্দিরের সামনে পতাকা লাগাচ্ছিলেন। সেই সময় তাদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তৃণমূল কর্মীরা। প্রথমে অশ্লীল ভাষায় আক্রমণ করা হয়, তারপর আক্রমণ করা হয়। মাথা ফাটে শান্তনু ধলের। আহত হয় আরও বেশ কয়েকজন। আহত শান্তনু ধল মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে ঢোকার মুখে জানালেন, “আমরা বিজেপি কর্মী নই। বজরং দল করি। বজরং দলের পতাকা টাঙাচ্ছিলাম মন্দিরের সামনে। তখনই সভা ফেরত তৃণমূল কর্মীরা বলে, মন্দিরে কোনো রাজনৈতিক দলের পতাকা লাগানো যাবেনা। আমরা প্রতিবাদ করতে গেলেই অশ্লীল ভাষায় আক্রমণ করার সাথে সাথে হাতে থাকা লাঠি দিয়ে মারতে শুরু করে। আমার দাদাকে এবং আরও কয়েকজনকে মারে। বাড়ির মহিলারা ছুটে এলে তাদেরও মারধর করা হয়।” ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছেছে। এই বিষয়ে তৃণমূল ও বিজেপি একে অপরের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছে।

আরও পড়ুন -   তৃণমূলের কেশপুর ৯ নং অঞ্চল সভাপতির 'লাগামছাড়া' দুর্নীতির বিরুদ্ধে পোস্টার তৃণমূল কর্মীরই