বনধ থাকলেও সরকারি কর্মীদের হাজিরা বাধ্যতামূলক! ভোটকর্মীদের দিতে হবে করোনা টিকা ও পর্যাপ্ত নিরাপত্তা, ডেপুটেশন দিল মঞ্চ

বিজ্ঞাপন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ১১ ফেব্রুয়ারি: আগামীকাল বামেদের ১২ ঘন্টার বনধ। অন্যদিকে, কাল থেকেই খুলছে স্কুল। অফিস-আদালত তো খোলা আছেই। এর মধ্যেই, হাজিরা (উপস্থিতি) বাধ্যতামূলক করে,‌ প্রতিবারের মতোই (বনধের আগে) অর্থ দফতরের বিশেষ নির্দেশিকা জারি করে জানিয়ে দেওয়া হল, শুক্রবার (১২ ই ফেব্রুয়ারি) উপস্থিতি বাধ্যতামূলক। জরুরি কয়েকটি কারণ ছাড়া Casual Leave (সিএল) অনুমোদন করা হবেনা। এই কারণগুলি হল- হাসপাতালে ভর্তি থাকা,‌ ব্যক্তিগত বা পারিবারিক দুর্ঘটনা, ১১ তারিখ বা তার আগে থেকেই যদি ছুটিতে থাকেন এবং চাইল্ড কেয়ার লিভ বা ম্যাটারনিটি লিভে থাকলে। এই পরিস্থিতিতে শিক্ষক-শিক্ষিকা সহ সরকারি কর্মীরা দুশ্চিন্তায় আছেন, সঠিক সময়ে নিজেদের কর্মস্থলে পৌঁছোনোর বিষয়ে। এদিকে, আগামীকাল বিজেপির ‘পরিবর্তন যাত্রা’ পশ্চিম মেদিনীপুরের বেলদা, নারায়ণগড় হয়ে খড়্গপুর ও মেদিনীপুরে পৌঁছবে। সবমিলিয়ে টানটান উত্তেজনা যে থাকবেই তা অনুমান করাই যায়। যদিও, প্রশাসনের তরফে কড়া নিরাপত্তা বা পুলিশি নজরদারি থাকবে বলে জানা গেছে।

thebengalpost.in
আগামীকাল খুলছে স্কুল :

বিজ্ঞাপন
[ আরও পড়ুন -   বিক্ষোভ, অবরোধ, টায়ার জ্বালানো থেকে রাস্তার উপর ক্রিকেট! পশ্চিম মেদিনীপুরে ৫৫ জন গ্রেফতার, ১৬৬ জন আটক, 'সফল' বনধে খুশি বাম-কংগ্রেস ]

এদিকে, আজ (বৃহস্পতিবার) শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চের পক্ষ থেকে বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিটি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীসহ সুনিশ্চিত নিরাপত্তার দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হয়। বিক্ষোভের পর প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে জেলাশাসকের দপ্তরে গিয়ে, অতিরিক্ত জেলাশাসক (শিক্ষা) প্রতিমা দাসের হাতে স্মারকলিপি তুলে দেওয়া হয়। অতিরিক্ত জেলাশাসক প্রতিমা দাস জানিয়েছেন, আজকের ডেপুটেশনের কপি তিনি সিইও দপ্তরে পাঠিয়ে দেবেন। মঞ্চের তরফে এদিনের প্রতিনিধি দলে ছিলেন, রাজ্য সম্পাদক কিংকর অধিকারী, প্রভাত শতপথী, অনিন্দ্য সুন্দর পাল, বিশ্বজিৎ ভূঁইঞা প্রমুখ। রাজ্য সম্পাদক কিংকর অধিকারী বলেন, “রাজ্যের সিইও দপ্তরের পাশাপাশি আমরা প্রতিটি জেলায়, জেলাশাসকের দপ্তরে এবং ব্লকে ব্লকে ডেপুটেশন কর্মসূচি পালন করেছি। আমরা বিশেষ কোনো দলের পক্ষে বা বিপক্ষে নই। আমরা চাই, সাংবিধানিক এই দায়িত্ব ভোট কর্মীরা যেন মাথা উঁচু করে পালন করতে পারে তা নিশ্চিত করুক নির্বাচন কমিশন।”

thebengalpost.in
অতিরিক্ত জেলাশাসকের দপ্তরে ডেপুটেশন :

Advertisements

বৃহস্পতিবার এই ডেপুটেশনে যেসমস্ত দাবিগুলি তুলে ধরা হয়েছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল-
১) রাজ্যে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিটি ভোট কর্মীর জন্য সুনিশ্চিত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার বিষয়ে লিখিত প্রতিশ্রুতি দিতে হবে।
২) প্রতিটি বুথে প্রিজাইডিং অফিসারের সহিত ৬ জন কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী (সেন্ট্রাল ফোর্স) দিয়ে ভোটার এবং ভোট কর্মীদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে।
২) স্পর্শকাতর বুথগুলিতে দ্বিগুণ হারে এই নিরাপত্তা বাহিনীর ব্যবস্থা রাখতে হবে।
৩) রিলিভারের জন্য প্রতিটি বুথে একজন করে অতিরিক্ত ভোটকর্মী দিতে হবে।
৪) ভোটকর্মী হিসাবে দায়িত্ব পালনের পূর্বে, সমস্ত ভোট কর্মীর জন্য প্রতিষেধক কোভিড ভ্যাকসিন টিকাকরণ সুনিশ্চিত করতে হবে।
৫) ডিউটি থাকা অবস্থায় হিংসাত্মক কোন ঘটনায় ভোট কর্মীর মৃত্যু হলে, তাঁর পরিবারকে ৫০ লক্ষ টাকা আর সাধারণ মৃত্যুর ক্ষেত্রে ৩০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ হিসাবে দিতে হবে এবং পরিবারের একজনকে চাকুরি দিতে হবে।
৬) হতাহতের জন্য আগে থেকে প্রতিটি ভোট কর্মীর জন্য বীমার ব্যবস্থা করে রাখতে হবে।
৭) ভোট গ্রহণের শেষে ভোট বাক্স জমা দেওয়ার পর, রিলিজ অর্ডার দিয়ে দিলেই নির্বাচন কমিশনের সমস্ত দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না! ভোট গ্রহণের জন্য ভোট কর্মীদের বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর থেকে বাড়ি না ফেরা পর্যন্ত তাঁর জীবনের সমস্ত নিরাপত্তার ভার নির্বাচন কমিশনকে নিতে হবে।

[ আরও পড়ুন -   দৈনিক বেতন মাত্র ৫০ টাকা! ডেবরা, সবং, শালবনী, গড়বেতা সহ সারা জেলার প্রাণিসম্পদ কর্মীরা গর্জে উঠলেন মেদিনীপুরে ]

Advertisements