টিম নিয়ে “খেলা” পরিচালনা করতে চললেন জাতীয় রেফারি মেদিনীপুরের ইন্দ্রজিৎ পানিগ্রাহী

সমীরণ ঘোষ, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২৬ মার্চ: বঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে এবার ‘হিট’ বাংলাদেশের সামিম ওসমানের “খেলা হবে” স্লোগান! রাজনৈতিক দল থেকে ঘরের আট থেকে আশি, ছেলে-বুড়োর দল থেকে মাসি-পিসি সকলের মুখে মুখেই “খেলা হবে…খেলা হবে” রব। শাসকদল তো রীতিমতো দলীয় স্লোগানে পরিণত করেছে একে। বিরোধীরা প্রকশ্যে সমালোচনা করলেও, মনে মনে বলছেন, “খেলাতো এবার হবেই!” এদিকে, ভোটকর্মীরাও এবার মুচকি হেসে বলছেন, “ভোট নিতে নয়, এবার খেলা করাতে যাচ্ছি।” আর প্রিসাইডিং অফিসাররা মজা করে নেটদুনিয়ায় লিখছেন, “ভোট শেষ হলে এবার ঘোষণা করব- খেলা শেষ!” সেই সূত্র ধরেই, ভোট পরিচালনার দায়িত্ব নিয়ে, পেশায় সরকারি কর্মী তথা ফুটবল জগতে ‘জাতীয় রেফারি’ মেদিনীপুরের বাসিন্দা ইন্দ্রজিৎ পানিগ্রাহী আজ বললেন, “চললাম খেলা পরিচালনা করতে।” মেদিনীপুর কে. ডি কলেজের শিক্ষাকর্মী ইন্দ্রজিৎ বাবু’র ভোট পরিচালনার দায়িত্ব পড়েছে ২১৯ দাঁতন বিধানসভায়।

thebengalpost.in
ইন্দ্রজিৎ পানিগ্রাহী :

আজ দাঁতন বিধানসভার DC (Distribution Centre) নেকুড়সিনি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে, নিজের সঙ্গী সাথীদের (Polling Personnel বা অন্যান্য ভোটকর্মী) এবং ভোটের প্রয়োজনীয় মালপত্র নিয়ে রওনা হওয়ার আগে ডিস্ট্রিক্ট রেফারি অ্যাশোসায়েশনের সম্পাদক (Secretary) ইন্দ্রজিৎ পানিগ্রাহী বলে গেলেন, “ফুটবলেও রেফারির দায়িত্বে টানটান উত্তেজনা থাকে, আর এই খেলাতেও টানটান উত্তেজনা আছে। চললাম, ফুটবলের মতো এখানেও নিরপেক্ষ ভাবে খেলা (পড়ুন, ভোট) পরিচালনা করতে।” প্রসঙ্গত, আগামীকাল (২৭ মার্চ) ফার্স্ট পোলিং অফিসার হিসেবে, দাঁতন বিধানসভার (২১৯) রেনজুড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের (০৩২) ভোট পরিচালনার দায়িত্বে থাকছেন ইন্দ্রজিৎ বাবু। ওই বুথের প্রিসাইডিং অফিসার হলেন, মহঃ রেজা আহম্মদ। আপাতত, শান্তিপূর্ণ ভাবে প্রথম দফার ‘খেলা’ শেষ হওয়ার অপেক্ষায়, জাতীয় রেফারি থেকে খেলোয়াড় কিংবা দর্শক সকলেই!

আরও পড়ুন -   শালবনীর কৃষক সনাতন সিংয়ের বাড়িতে মধ্যাহ্নভোজন করবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ