নন্দীগ্রামে নজিরবিহীন পরিস্থিতি! মুখ্যমন্ত্রী আটকে থাকলেন ২ ঘন্টা, রাজ্যপালকে ফোনে বললেন, “৮০ শতাংশ বুথে ছাপ্পা হয়েছে”

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পূর্ব মেদিনীপুর, ১ এপ্রিল: নন্দীগ্রামে নজিরবিহীন পরিস্থিতি! স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বয়ালের ৭ নং বুথে আটকে থাকলেন প্রায় ২ ঘন্টা! সেখান থেকেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় কে ফোনে বললেন, “ভোটের নামে নন্দীগ্রামে প্রহসন হয়েছে! মানুষ ভোট দিতে পারছেনা। ৮০ শতাংশ বুথে ছাপ্পা হয়েছে। আপনি কিছু করুন।” এরপর, প্রায় ২ ঘন্টা পর, বিশাল পুলিশবাহিনী গিয়ে তাঁকে বের করে আনে। সেখানে পৌঁছন দায়িত্বপ্রাপ্ত IPS নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠি।

thebengalpost.in
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (সৌ: ANI) :

জানা গিয়েছে, নন্দীগ্রামের বয়ালের ভক্ত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭নং বুথ থেকে বেরোনোর সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ঘিরে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দেওয়া হয়। তৃণমূল ও বিজেপি কর্মীদের মধ্যে রীতিমতো সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈর হয়। ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয় RAF, পুলিশ। ব্যারিকেড দিয়ে গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে পুলিশ। দু’পক্ষের মধ্যে তুমুল বচসা চলে। তৃণমূলের তরফে অভিযোগ, তাঁরা ভোট দিতে পারেননি ওই বুথে। বিজেপি ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে বলে অভিযোগ করেছেন তাঁরা। দু’পক্ষই কার্যত মারমুখী হয়ে ওঠে। বুথের ভিতরে ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুথ থেকেই রাজ্যপালকে ফোন করেন তিনি। পাশাপাশি, নির্বাচনী আধিকারিকদের সঙ্গে কথাও বলেন। জানা যাচ্ছে, ওই বুথে সকাল থেকেই উত্তেজনা ছিল! এদিন দুপুরে ১ টা নাগাদ, রেয়াপাড়ার বাড়ি থেকে বেরোন তৃণমূলনেত্রী। তারপরই বয়ালের এই বুথে যান তিনি। প্রবল বিক্ষোভের মুখে দুপুর দেড়টা থেকে সাড়ে তিনটা অবধি ওই বুথে একপ্রকার ‘বন্দী’ হয়ে পড়েন তিনি! প্রায় ২ ঘণ্টা পর কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে ওই বুথ থেকে বের করে আনা হয় তৃণমূলনেত্রীকে।

আরও পড়ুন -   দূরত্ব বজায় রেখে 'আন্তর্জাতিক যোগ দিবস' পালিত হল পূর্ব থেকে পশ্চিম, শহর থেকে জঙ্গলমহলে