“ওরা চা দিলে খাবেন না, চায়ের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দিতে পারে”, নন্দকুমার থেকে নিজেদের এজেন্টদের ‘সাবধান’ করলেন মমতা

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পূর্ব মেদিনীপুর, ২১ মার্চ: তিনি বরাবরই ব্যতিক্রমী! সে আক্রমণ করাই হোক বা উপদেশ দেওয়াই হোক। তিনি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে আজ পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দকুমারের সভায় নিজের দলের কর্মী-সমর্থক বা যারা পোলিং এজেন্ট সহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করবেন, তাঁদের উদ্দেশ্য নানা উপদেশ দিলেন। তিনি বললেন, “সকাল সকাল ভোট দিন। নিজের ভোট নিজেরা দিন। কেউ কোনও ভয় দেখালে ভয় পাবেন না। আর, আপনারা ভালো করে ইভিএম মেশিন পরীক্ষা করে দেখে নেবেন। নাহলে সুযোগ পেলেই বিজেপি ভোট দিয়ে দেবে। ভোটের পর ব্যালট বাক্স ভালো করে পাহারা দেবেন। যতই পুলিশ থাকুক, পুলিশ পুলিশের কাজ করবে, আপনারা আপনাদের কাজ করবেন। আর হ্যাঁ, ওরা চা খাওয়াতে চাইলে, জল খাওয়াতে চাইলে খাবেন না। বলা যায়না, চায়ের মধ্যে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দিতে পারে। ওরা সব পারে!”

thebengalpost.in
দক্ষিণ কাঁথি’র সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় :

গতকাল ৩ টি সভা করার পর, আজও পূর্ব মেদিনীপুরে ৩ টি সভা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তর কাঁথি, দক্ষিণ কাঁথি এবং নন্দকুমারে সভা করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিন জায়গাতেই তাঁর আক্রমণের মূল লক্ষ্য ছিল, কাঁথির অধিকারী পরিবার। আজই পূর্ব মেদিনীপুরের এগরার সভায় অমিত শাহের হাত ধরে বিজেপি’তে যোগদান করেছেন শিশির অধিকারী। তাই, আক্রমণের ধার আরও বাড়ালেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “এখানে একটা জমিদারি রাজ চলত। তারাই আমাকে এখানে আসত দিতনা।” নাম না করে শুভেন্দু অধিকারী’কে আক্রমণ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “একটা গদ্দর ছিল। তাকে খুব ভালোবাসতাম। অন্ধভাবে বিশ্বাস করেছিলাম। কিন্তু, ২০১৪ থেকে বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছিল, আমি বুঝতে পারিনি। আমি একটু বোকা আছি। সবাইকে সহজে বিশ্বাস করে ফেলি। তবে, এতে একটা সুবিধাও আছে। মীরজাফরদের মুখোশ টাও খুলে যায়। আমার মুখোশ খোলেনা!” এদিন, পূর্ব মেদিনীপুর থেকে শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির কথাও স্বীকার করেন মুখ্যমন্ত্রী! তিনি বলেন, “জানি গদ্দররা শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে টাকা খেয়েছে!” শিক্ষিত যুব সম্প্রদায় অবশ্য প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে, “সব জেনেও আপনি চুপ ছিলেন কেন!”

thebengalpost.in
বিজ্ঞাপন (Advertisement) :

আরও পড়ুন -   পা ভেঙেছিল নন্দীগ্রামে, সুস্থ হলেন সেই নন্দীগ্রামেই! 'ভাইরাল ভিডিও' থেকে মুখ্যমন্ত্রীর সুস্থ হয়ে ওঠার ইঙ্গিত