নির্বাচনের আগের দিনই পশ্চিম মেদিনীপুরের বিভিন্ন বিধানসভায় ‘শাসকদলকে এগিয়ে রেখে’ জেলা পুলিশের নামে ‘ভুয়ো লিফলেট’

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ৩১ মার্চ: আগামীকাল দ্বিতীয় দফার নির্বাচন। পশ্চিম মেদিনীপুরের ৯ টি বিধানসভাতেও অনুষ্ঠিত হবে এই দ্বিতীয় দফার নির্বাচন। তার ঠিক আগের দিনই, এই ৯ টি বিধানসভার অধিকাংশ আসনেই শাসকদল তৃণমূলকে এগিয়ে রেখে ‘ভুয়ো লিফলেট’ ছড়ানোর অভিযোগ উঠল। বুধবার সকালে নারায়ণগড়, ডেবরা, কেশপুর প্রভৃতি বিধানসভায় পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশের লোগো ও স্ট্যাম্প ব্যবহার করে এবং খড়্গপুর সদর, চন্দ্রকোনা প্রভৃতি বিধানসভায় রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘ (RSS) এর নাম-লোগো ব্যবহার করে এই লিফলেট ছড়ানো হয়েছে। এছাড়াও, পুলিশের IB (গোয়েন্দা বিভাগ) দপ্তরের নামে সারা রাজ্যের সমীক্ষা করা হয়েছে। সেখানেও, তৃণমূলকে ২০০ ‘র বেশি আসন (২০৪-২১১) দেওয়া হয়েছে এবং বিজেপি’কে প্রায় ৯০ টি (৮২-৯১) আসন দেওয়া হয়েছে। আর এ নিয়েই সরাসরি শাসকদলকে আক্রমণ শানিয়েছে জেলা বিজেপি। হারার ভয়েই এইসব কাজ করছে তৃণমূল বক্তব্য তাদের। তৃণমূল বলছে, বিজেপিরই চক্রান্ত! শাসক দলকে অপদস্থ করতে বিজেপি এই সব করছে অভিযোগ তাদের। জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

thebengalpost.in
ভুয়ো লিফলেট :

প্রসঙ্গত, আগামীকাল পশ্চিম মেদিনীপুরের নারায়ণগড়, খড়্গপুর সদর, ডেবরা, পিংলা, সবং, কেশপুর, চন্দ্রকোনা, ঘাটাল এবং দাসপুর বিধানসভায় ভোট। তার আগে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশের লোগো এবং স্ট্যাম্প (ভুয়ো) ব্যবহার করে এই ধরনের লিফলেট ছড়িয়ে দেওয়ায় সারা জেলা জুড়েই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। উল্লেখযোগ্য ভাবে, প্রতিটি বিধানসভাতেই শাসক দলকে বিভিন্ন ভোটের অংকে এগিয়ে রাখা হয়েছে। যেমন, নারায়ণগড়ে ১০০০ তো কেশপুরে ১৫০০০ ভোটে এগিয়ে রাখা হয়েছে! আরো আশ্চর্যজনক যে, হিন্দুত্ববাদী সংগঠন RSS এর নাম ও লোগো ব্যবহার করে যে লিফলেট ছড়ানো হয়েছে, তাতেও তৃণমূল’কে এগিয়ে রাখা হয়েছে। এ নিয়ে মেদিনীপুর সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতি সোমেন তিওয়ারি’র স্পষ্ট অভিযোগ, “হারার ভয়ে তৃণমূলে এইসব কান্ড-কারখানা করছে। এর সঙ্গে জেলা পুলিশের একটা অংশ জড়িত বলে আমাদের অভিযোগ। নাহলে এখনো দোষীদের গ্রেফতার করা হলো না কেন! আমরা নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানিয়েছি। তবে, এইভাবে জেলার ভোটারদের প্রভাবিত করার চক্রান্ত তৃণমূলের সফল হবে না। মানুষ ঠিক করে নিয়েছে, এবার তারা সোনার বাংলা গড়তে বিজেপিকেই ভোট দেবে।” অপরদিকে, জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক সুজয় হাজরা বললেন, “বিজেপি বিভিন্ন এজেন্সিকে ব্যবহার করে এই সমস্ত কাজ করছে শুধুমাত্র তৃণমূলকে অপদস্থ ও সাধারণ মানুষের কাছে ছোট করার জন্য। তৃণমূল কংগ্রেসের এত টাকাও নেই, আর এইসব কাজ করার কোনও প্রয়োজন নেই। প্রথম দফায় বিজেপি পিছিয়ে পড়ার জন্যই, দ্বিতীয় দফার আগে শাসকদল তৃণমূল কে অপদস্থ করার অপচেষ্টা নিয়ে এইসব কাজ করছে।” জেলা পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার জানিয়েছেন, “বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে এবং তদন্ত শুরু করা হয়েছে।”

thebengalpost.in
এরকমই লিফলেট বিভিন্ন বিধানসভা এলাকায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে :

আরও পড়ুন -   "সর্পবন্ধু" দেবরাজ চক্রবর্তী'র পাশে দাঁড়িয়ে মানবিকতার নজির মেদিনীপুরের দুই সংস্থার