কোভিডে কুপোকাত মেদিনীপুর শহরের মির্জাবাজার! সবজি বাজার অন্যত্র সরানোর দাবিতে স্মারকলিপি এলাকাবাসীর, উদ্যোগ নিল প্রশাসন

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ১৩ মে: কোভিড ঝড়ে সারা মেদিনীপুর শহরই বেসামাল হয়ে পড়েছেন! শেষ ৭ দিনে গড়ে ১০০ জন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন শুধু মেদিনীপুর পৌরসভার অধীন শহর এলাকাতেই। আর, শহরের যে সমস্ত এলাকা রীতিমতো “হটস্পট” এ পরিণত, তার মধ্যে অন্যতম হল মির্জাবাজার। সার শহরে শেষ ৭ দিনে ৭০০ জন আক্রান্ত হলে শুধু মির্জাবাজাররেরই অন্তত ৭০ (মিয়াবাজার ও পানপাড়া সহ) জন। প্রথম ঢেউয়েও এই এলাকায় করোনা সংক্রমণের যথেষ্ট প্রভাব ছিল! আর, দ্বিতীয় ঢেউয়েও আবাস, কুইকোটা, বিধাননগর, শরৎপল্লী, হবিবপুর, নজরগঞ্জের সাথে সাথে মির্জাবাজার এলাকাটিও করোনা হটস্পটে পরিণত হয়েছে। এমনিতেই, এই এলাকার সচেতন নাগরিকবৃন্দ অভিযোগ করে চলেছেন, এখানে ঠিকঠাক ভাবে কোভিড বিধি মানা হচ্ছে না! মাস্ক করছেন না সাধারণ মানুষ, পরলেও নাক আর মুখের নীচে ঝুলছে। তার উপরে অভিযোগ, শহরের বাকি সবজি বাজার গুলি ফাঁকা মাঠে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হলেও, মির্জাবাজারের সবজি বাজার’টি কেন অন্যত্র সরানো হয়নি! সঙ্কীর্ণ পরিসরে অবস্থিত ওই সবজি বাজারে গাদাগাদি করে লোকে সবজি কিনছেন, মানা হচ্ছে না কোভিড বিধি; ফলে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে ওখান থেকেই! এই অভিযোগ জানিয়ে এবং বাজারটি অবিলম্বে ফাঁকা মাঠে ‌সরানোর দাবিতে বৃহস্পতিবার প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপি দিলেন এলাকাবাসীরা।

thebengalpost.in
ঈদের প্রস্তুতি :

প্রসঙ্গত, কোভিডের প্রথম পর্বে, মির্জাবাজার টি সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, অরবিন্দ নগর সংলগ্ন স্মৃতিকণা স্কুল মাঠে। এবারও সেই একই দাবি উঠেছে। কাজী নুরুল হোদা, বিশ্বজিৎ বেরা, মহঃ সাইফুল, আসগর আলি, বাবলু দাস সহ অন্তত ৫০ জন এলাকাবাসী লিখিত আকারে আজ সদর মহকুমাশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দিয়ে (অনলাইন মাধ্যমে) দাবি জানিয়েছেন, বাজারটি যেন অবিলম্বে কোনও ফাঁকা মাঠে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সমাজকর্মী মহঃ সাইফুল বললেন, “শেষ সাতদিনে ৭০-৮০ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই ঢুকে গেছে করোনা ভাইরাসের জীবাণু। শুধু আমার পরিচিত ৪ জন মারা গেছেন গত ২-৩ দিনে। মেডিক্যাল কলেজে ২ জন, কলকাতায় ২ জন। শালবনী ও মেদিনীপুর মিলিয়ে, কোভিড হাসপাতালে আমার পরিচিত অন্তত ১০-১২ জন ভর্তি আছেন। এই পরিস্থিতিতে, বাজারটি অবিলম্বে সরানো প্রয়োজন। বাইরে থেকে আসা লোকজন ভিড় করছেন, এ ওর গায়ে উঠে পড়ছেন, বাজারের মধ্যেই থুতু ফেলে দিচ্ছেন! আর অনেকেরই মুখের মাস্ক থুতনিতে ঝুলছে! তাই এলাকাবাসীদের সম্মিলিত দাবি বাজার অন্যত্র সরানোর জন্য।” এরপরই, মেদিনীপুর ‌পৌরসভার পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। নবনিযুক্ত পৌর প্রশাসক দীনেন রায় আজ জানিয়েছেন, বাজারটি স্মৃতিকণা মাঠৈ সরিয়ে যাওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

thebengalpost.in
কোনো বাজারেই নেই সচেতনতা (বক্সীবাজার) :

আরও পড়ুন -   ছয় ছাত্র-শহিদের 'ব্রিগেড' নিয়ে মেদিনীপুরের রাজপথ দখল করল লাল-সাদার ঢেউ, পূর্ণ করল পঞ্চাশের পথচলা