বাংলায় “যশ” তাণ্ডব শুরুর আগেই, মুম্বাইয়ের “তাউকটে” প্রাণ কাড়লো পিংলার যুবকের

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পশ্চিম মেদিনীপুর, ২৭: বাংলায় “যশ” (Yass) তাণ্ডব শুরু হওয়ার আগেই, মুম্বাই থেকে “তাউকট” (Tauktae এ মৃত্যুর খবর এলো পশ্চিম মেদিনীপুরের পিংলার যুবকের। ঘূর্ণিঝড় তাউকটে (Tauktae) এ মৃত্যু হওয়া যুবকের নাম শ্রীকান্ত খাটুয়া, বয়স ৩৬। সূত্রের খবর অনুযায়ী, পিংলা থানার অন্তর্গত হান্দোল গ্রামের বাসিন্দা শ্রীকান্ত মুম্বাইতে একটি তৈল উত্তোলন সংস্থায় রাঁধুনি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। গত ১৬ ই মে আরব সাগরের বুকে আছড়ে পড়া ভয়ঙ্কর সুপার সাইক্লোন তাউকটের দাপটে, বাড়ি চাপা পড়ে মৃত্যু হয় তাঁর।

thebengalpost.in
শ্রীকান্ত খাটুয়া :

thebengalpost.in
মর্মান্তিক মৃত্যু তাউটে বা তাউকটে ঘূর্ণিঝড়ে :

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মহারাষ্ট্রের পালঘর এলাকায় থাকতেন শ্রীকান্ত। সেই এলাকাও ভয়ঙ্করভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় “টাউকটে” ঘূর্ণিঝড়ে। সেখানেই কোনোভাবে বাড়ি চাপা পড়ে শ্রীকান্তেরও মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। এরপর, খবর পাঠানো হয় শ্রীকান্তের পশ্চিম মেদিনীপুরে পিংলার বাড়িতে। শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েন শ্রীকান্তের পরিবারের সদস্যরা। শ্রীকান্তের স্ত্রী ও একটি শিশু সন্তানও আছে! এভাবে মৃত্যু তাদের সকলের কাছেই বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতোই! বুকে শোক নিয়েই, গত ২৪ শে মে মহারাষ্ট্রের পালঘর জেলার বাহানা থানায় গিয়ে ভাই সুকান্ত গিয়ে দাদার দেহটি সনাক্ত করেন। যশ তাণ্ডবের মধ্যেই ফিরে আসে শ্রীকান্ত। আজ, বৃহস্পতিবার দাদার পারলৌকিক ক্রিয়া সম্পন্ন করেন তাঁরা। শ্রীকান্তের বাবা, বছর ৬৫ এর কার্তিক খাটুয়া বলেন, “নিজের জীবন থাকতে থাকতে এভাবে ছেলের জীবন চলে গেল! এই দিন দেখতে হবে কখনও ভাবতে পারিনি! ‘যশ’ না এলে জানতে পারতাম না ‘টাউকটে’ ও কতটা যন্ত্রণাদায়ক ছিল। ওই দিন ছেলে কতটা ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে ছিল!” শ্রীকান্তের মৃত্যুতে গোটা গ্রামে গভীর শোকের ছায়া নেমে এসেছে!

thebengalpost.in
পরিবার ছেড়ে ৩৬ বছর বয়সেই বিদায় নিতে হল প্রাকৃতিক দুর্যোগে :

আরও পড়ুন -   মেদিনীপুর শহরে ৬০ জনের রেকর্ড সংক্রমণ, দু'দিন বন্ধের পর মেডিক্যালে শুরু হল টেস্ট