ভারতবর্ষের “অতিমারী” ইতিহাসে এই প্রথম দৈনিক সংক্রমণ ১ লক্ষ! “লকডাউন ছাড়া গতি নেই” বলছেন বিশেষজ্ঞরা

thebengalpost.in
কোভিডের বিরুদ্ধে নতুন যুদ্ধ শুরু :

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, ৫ এপ্রিল: এই প্রথম এক লাখ করোনা আক্রান্ত একদিনে! গতবছর (২০২০) ৩০ জানুয়ারি দেশে প্রথম করোনা প্রবেশ করেছিল! ইংল্যান্ড ফেরত কেরালার ৩ যুবকের দেহে কোভিড-১৯ ভাইরাস ধরা পড়েছিল। তার পর থেকে প্রায় ১৪ মাসের “অতিমারী ইতিহাসে” এই প্রথম দৈনিক সংক্রমণ ১ লক্ষ ছাড়িয়ে গেল! কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় ১,০৩,৫৫৮ করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে। ১৪ মাসের করোনা-পর্বে এতদিন পর্যন্ত দৈনিক সর্বাধিক আক্রান্তের রেকর্ড ছিল ২০২০’র ১৬ সেপ্টেম্বর। টানা কয়েকদিন উর্ধ্বমুখী সংক্রমণের পর গত ১৬ সেপ্টেম্বর (২০২০) ৯৭,৮৯৪ জন করোনা আক্রান্তের হদিশ পাওয়া গিয়েছিল। তারপর থেকে অবশ্য ক্রমশ নিম্নমুখী হচ্ছিল সেই সংখ্যাটা। কিন্তু, ২০২১ এর ফেব্রুয়ারি থেকে ফের উর্ধ্বমুখি হয়। তবে, তা চরমে পৌঁছয় মার্চে। আর, চরমতম পর্যায়ে পৌঁছল এপ্রিলে! তবে, গত চব্বিশ ঘণ্টায় মৃত্যু’র সংখ্যা সামান্য কমেছে। ৪৭৮ জনের মৃত্যু হয়েছে গত চব্বিশ ঘণ্টায়।

thebengalpost.in
করোনা শিখরে পৌঁছল ভারতবর্ষে :

এদিকে, সোমবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত দেশের ১২ কোটি ৫৮ লক্ষ ৯ হাজার ৬৭ জন মানুষ করোনা আক্রান্ত হলেন! ১৩০ কোটির দেশে প্রায় ১০ শতাংশ মানুষ করোনা সংক্রমিত। তবে, দেশের প্রায় ৮ কোটি (৭ কোটি ৯১ লক্ষ ৫ হাজার ১৬৩) মানুষ ইতিমধ্যে করোনা টিকা বা ভ্যাকসিন নিয়ে নিয়েছেন। এই পরিসংখ্যান টা কিছুটা হলেও ইতিবাচক! দেশে এই মুহূর্তে সক্রিয় বা চিকিৎসাধীন (চিকিৎসাধীন ও হোম আইশোলেশনে থাকা মিলিয়ে) করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লক্ষ ৪১ হাজার ৮৩০। এই সংখ্যাটা ফেব্রুয়ারি মাসে (২০২১) ১ লক্ষের নিচে নেমে গিয়েছিল! এদিকে, শুধুমাত্র মহারাষ্ট্রে দৈনিক সংক্রমণ ৫৭ হাজার ছাড়িয়েছে এবং মুম্বই শহরে ১১ হাজার। এই পরিস্থিতিতে নাইট কার্ফু এবং উইকেন্ড লকডাউনের পথে হাঁটছে মুম্বই। AIMS এর একদল বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, “প্রতিটি রাজ্যকেই অবিলম্বে এই পথে হাঁটতে হবে। সঙ্গে টেস্ট ও ভ্যাকসিনেশন বাড়াতে হবে। মাস্ক ছাড়া এক মুহূর্ত হাঁটা যাবেনা।”

আরও পড়ুন -   ফের জঙ্গি হামলায় শহীদ হলেন দুই জওয়ান, সংঘর্ষে প্রাণ গেল এক বৃদ্ধেরও, মৃতদেহের উপর বসে তাঁর নাতি, ভাইরাল হল মর্মান্তিক সেই ছবি