দ্বিতীয় দফার ‘এপিসেন্টার’ নন্দীগ্রামে IIT খড়্গপুরের কর্মীর রহস্যমৃত্যু, ‘মানসিক চাপ’ দেওয়ার অভিযোগ শাসকদলের বিরুদ্ধে

দ্য বেঙ্গল পোস্ট প্রতিবেদন, পূর্ব মেদিনীপুর, ১ এপ্রিল: দ্বিতীয় দফার নির্বাচনের ‘এপিসেন্টার’ (Epicentre) নন্দীগ্রামে সকাল সকাল এক বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করা হল! বাড়ির শৌচাগার থেকে উদ্ধার হয় মৃতদেহ। ওই কর্মী পেশায় ছিলেন, IIT খড়্গপুরের কর্মী। বিজেপির দাবি, তাদের দলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন মৃত উদয়শঙ্কর দুবে। শাসকদল তাকে খুনের হুমকি দেওয়ায় আত্মহত্যা করে সে। অভিযোগ অস্বীকার করেছে শাসকদল।

thebengalpost.in
মৃত উদয়শঙ্কর দুবে :

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নন্দীগ্রামের ১ নং ব্লকের পূর্ব ভেকুটিয়ার বাসিন্দা উদয়শংকর দেব। দীর্ঘদিন ধরেই বিজেপির সঙ্গে যুক্ত তিনি। সক্রিয় কর্মী হিসেবেই এলাকায় পরিচিত ছিলেন। অভিযোগ, সেই কারণেই বারবার তৃণমূলের হুমকির মুখে পড়তে হয়েছিল তাঁকে। হেনস্তা করা হত তাঁকে। মৃতের পরিবার সূত্রে খবর, বুধবার গভীর রাতে একদল তৃণমূল কর্মী তাঁদের বাড়িতে যান। অভিযোগ, ভোট দিতে গেলে তাঁদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। এই ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই অত্যন্ত আতঙ্কে ভুগছিলেন উদয়শংকর। পরে বৃহস্পতিবার সকালে বাড়িতেই উদ্ধার হয় ওই ব্যক্তির দেহ। ভোটের দিন সকালে অধিকারীদের গড় নন্দীগ্রামে বিজেপি কর্মীর দেহ উদ্ধারের ঘটনায় স্বাভাবিকভাবেই চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। তৃণমূলের হুমকির জেরেই আত্মঘাতী হয়েছেন উদয়শংকর, এই অভিযোগ তুলে পথে নামেন বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারির দাবিতে সরব হন তাঁরা। বলেন, “তৃণমূল যেভাবে সন্ত্রাস ছড়াচ্ছে তাতে আমাদের পক্ষে ভোট দিতে যাওয়া কার্যত অসম্ভব!” যদিও এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলেই দাবি স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের। তাঁদের দাবি, ওই বিজেপি কর্মীর পরিবারে দীর্ঘদিন ধরেই অশান্তি চলছিল! ফলে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন। সেই কারণেই আত্মঘাতী হয়েছেন তিনি। এই ঘটনার সঙ্গে শাসকদলের কোনও যোগ নেই। পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যেই দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। ঘটনার তদন্ত হবে।

আরও পড়ুন -   নির্বাচনের আগের দিনই পশ্চিম মেদিনীপুরের বিভিন্ন বিধানসভায় 'শাসকদলকে এগিয়ে রেখে' জেলা পুলিশের নামে 'ভুয়ো লিফলেট'