পিএম কেয়ার ফান্ডের টাকায় কেনা ভেন্টিলেটর পৌঁছলো হাসপাতালে, ২০ টির মধ্যে ১০টি ত্রুটি পূর্ণ

বিশেষ প্রতিবেদন, সুদীপ্তা ঘোষ, ২৫ জুলাই : করোনা রোগের সাথে লড়াই করবার উদ্দেশ্যে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী পিএম কেয়ার ফান্ডের মাধ্যমে ২০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছিলেন। তা দিয়ে ৫০,০০০ টি ভেন্টিলেটর কেনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এই ভেন্টিলেটর গুলি প্রধানত রাজ্য সরকার দ্বারা পরিচালিত হাসপাতালগুলোকে দেওয়ার কথা। এবার সেই ভেন্টিলেটর গুলির মধ্যে ২০ টি ভেন্টিলেটর কেনেন চণ্ডীগড় প্রশাসন। এর মধ্যে ১০ ভেন্টিলেটর রোগীদের জন্য উপযুক্ত নয় বলে জানিয়ে দেন শহরের পোস্ট গ্রেজুয়েট ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল এডুকেশন এন্ড রিসার্চ(PGIMER) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

দ্য বেঙ্গল পোস্ট
ভেন্টিলেটর :

সূত্রের খবর, চন্ডীগড়ের সেক্টর ৪৮ এবং সেক্টর ৩২-তে কোভিড হাসপাতাল খোলা হয়েছে। এর মধ্যে সেক্টর-৪৮ এলাকায় যে কোভিড হাসপাতাল তৈরি করা হয়েছে সেটি গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের (GMCH) অধীন। এই দুই হাসপাতালের জন্য ২০টি ভেন্টিলেটর কেনে চণ্ডিগড় প্রশাসন। কিন্তু সেক্টর-৪৮ এলাকার হাসপাতাল এখনও শুরু হয়নি। ফলে GMCH আওতাধীন ওই হাসপাতালের জন্য বরাদ্দ ১০টি ভেন্টিলেটর পাঠানো হয়েছিল শহরের পোস্ট গ্রাজুয়েট ইন্সটিটিউট অফ মেডিক্যাল এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ-এ (PGIMER)। কিন্তু সেই ভেন্টিলেটরগুলি রোগীদের জন্য উপযুক্ত নয় বলে PGIMER-এর এক আধিকারিক জানিয়েছেন। PGIMER-এর এক চিকিৎসক জানান, “যে ১০ টি ভেন্টিলেটর এসেছিল সেগুলির মধ্যে ট্যাকনিকাল প্রবলেম আছে। আমরা GMCH এ রিপোর্ট করেছি। কিন্তু ওরা মিথ্যে কথা বলছে। অকেজো ভেন্টিলেটর গুলি ফেরত নিয়ে যাচ্ছেনা। এই ভেন্টিলেটর গুলি কোয়ালিটির মানদণ্ডের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়নি। এই ভেন্টিলেটর গুলিতে ১০০ শতাংশ অক্সিজেন স্যাচুরেশন লেভেলের সুবিধে নেই”।
দ্য বেঙ্গল পোস্ট
PGIMER :

উল্লেখ্য ‘মেক ইন্ ইন্ডিয়া’ প্রকল্পে তৈরি হওয়া ভেন্টিলেটর গুলিতে অসুবিধার অভিযোগ এই প্রথম নয়! এর আগেও মুম্বাই এর একটি হাসপাতালের তরফ থেকে অভিযোগ আসে, ৮১ টি ভেন্টিলেটর খারাপ বলে। তারা সেগুলি ফেরত পাঠিয়ে দিয়েছিল। সেই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হওয়ায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। প্রসঙ্গত, GMCH এর ডিরেক্টর তথা প্রিন্সিপাল ডাঃ বি এস চবন বলেন, “আমাদের সেক্টর ফর্টি এলাকার হাসপাতালে মোট ১৫ টি ICU বেড আছে। PGIMER থেকে রিপোর্ট পাওয়ার পরে, আমরা আমাদের অ্যানেসথেসিয়া বিভাগকে বিষয়টি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছি।” পিএম কেয়ার ফান্ডের টাকায় কেনা ওই ভেন্টিলেটর গুলিতে কোন সমস্যা আছে কিনা তা রিপোর্ট পাওয়ার পরই পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে স্পষ্ট জানিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন -   মাত্র ১০ সেকেন্ডেই পাওয়া যাবে ফল, ভারত ও ইজরাইলের হাত ধরে আসতে চলেছে নতুন কিট